কারাগারের রোজানামচা – শেখ মুজিবুর রহমান বইটির ভূমিকা

karagarer-rojnamcha

কারাগারের রোজানামচা – শেখ মুজিবুর রহমান
বইটির ভূমিকা

কারাগারের জীবন

ভাষা আন্দোলন বঙ্গবন্ধু শুরু করেন ১৯৪৮ সালে । ১১ই মার্চ বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষার মর্যাদা দেয়ার দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন এবং গ্রেফতার হন । ১৫ই মার্চ তিনি মুক্তি পান। ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে সমগ্ৰ দেশ সফর শুরু করেন। জনমত সৃষ্টি করতে থাকেন। প্রতি জেলায় সংগ্রাম পরিষদ গড়ে তোলেন । ১৯৪৮ সালের ১১ই সেপ্টেম্বর তৎকালীন সরকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে ফরিদপুরে গ্রেফতার করে। ১৯৪৯ সালের ২১শে জানুয়ারি মুক্তি পান। মুক্তি পেয়েই আবার দেশব্যাপী জনমত সৃষ্টির জন্য সফর শুরু করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের দাবির প্রতি তিনি সমর্থন জানান এবং তাদের ন্যায্য দাবির পক্ষে আন্দোলনে অংশ নেন । সরকার ১৯৪৯ সালের ১৯শে এপ্রিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেফতার করে । জুলাই মাসে তিনি মুক্তি পান । এইভাবে কয়েক দফা গ্রেফতার ও মুক্তির পর ১৯৪৯ সালের ১৪ই অক্টোবর আর্মানিটােলা ময়দানে জনসভা শেষে ভুখা মিছিল বের করেন। দরিদ্র মানুষের খাদ্যের দাবিতে ভুখা মিছিল করতে গেলে আওয়ামী লীগের সভাপতি মওলানা ভাসানী, সাধারণ সম্পাদক শামসুল হক ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গ্রেফতার হন ।

এবারে তাকে প্রায় দু’বছর পাঁচ মাস জেলে আটক রাখা হয়। ১৯৫২ সালের ২৬শে ফেব্রুয়ারি ফরিদপুর জেল থেকে মুক্তি লাভ করেন ।

১৯৫৪ সালের ৩০শে মে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুক্তফ্রন্ট মন্ত্রিসভার সদস্য হিসেবে করাচি থেকে ঢাকায় প্রত্যাবর্তন করে গ্রেফতার হন এবং ২৩শে ডিসেম্বর মুক্তি লাভ করেন।

১৯৫৮ সালের ১২ই অক্টোবর তৎকালীন সামরিক সরকার কর্তৃক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেফতার করা হয় । এবারে প্রায় চৌদ্দ মাস জেলখানায় বন্দি থাকার পর তাকে মুক্তি দিয়ে পুনরায় জেল গোটেই গ্রেফতার করা হয় । ১৯৬০ সালের ৭ই ডিসেম্বর হাইকোর্টে রিট আবেদন করে মুক্তি লাভ করেন।

১৯৬২ সালের ৬ই ফেব্রুয়ারি আবার জননিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার হয়ে তিনি ১৮ই জুন মুক্তি লাভ করেন ।
১৯৬৪ সালে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ১৪ দিন পূর্বে তিনি আবার গ্রেফতার হন ।

১৯৬৫ সালে রাষ্ট্রদ্রোহিতা ও আপত্তিকর বক্তব্য প্রদানের অভিযোগে মামলা দায়ের করে তাকে এক বছরের কারাদণ্ড প্ৰদান করা হয় । পরবর্তী সময়ে হাইকোর্টের নির্দেশে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান ।

১৯৬৬ সালের ৫ই ফেব্রুয়ারি লাহোরে বিরোধী দলসমূহের জাতীয় সম্মেলনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঐতিহাসিক ৬ দফা দাবি পেশ করেন । ১লা মার্চ তিনি আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন ।
তিনি যে ছয় দফা দাবি পেশ করেন তা বাংলার মানুষের বাঁচার দাবি হিসেবে করেন, সেখানে স্বায়ত্তশাসনের দাবি উত্থাপন করেন যার অন্তর্নিহিত লক্ষ্য ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতা ।

একের পর এক দাবি নিয়ে জনগণের অধিকারের কথা বলার কারণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৬৬ সালের প্রথম তিন মাসে ঢাকা, চট্টগ্রাম, যশোহর, ময়মনসিংহ, সিলেট, খুলনা, পাবনা, ফরিদপুরসহ বিভিন্ন শহরে আটবার গ্রেফতার হন ও জামিন পান । নারায়ণগঞ্জে সর্বশেষ মিটিং করে ঢাকায় ফিরে এসেই ৮ই মে মধ্য রাতে গ্রেফতার হন । তাঁকে কারাগারের অন্ধকার কুঠুরিতে জীবন কাটাতে হয়। শোষকগোষ্ঠীর শোষণের বিরুদ্ধে বক্তৃতা দিয়েছেন, বাংলাদেশের মানুষের ন্যায্য দাবি তুলে ধরেছেন। ফলে যখনই জনসভায় বক্তৃতা করেছেন তখনই তার বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে গ্রেফতার করেছে সরকার ।

১৯৬৮ সালের ৩রা জানুয়ারি পাকিস্তান সরকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে এক নম্বর আসামি করে মোট ৩৫ জন বাঙালি সেনা ও সিএসপি অফিসারের বিরুদ্ধে পাকিস্তানকে বিচ্ছিন্ন করার অভিযোগ এনে রাষ্ট্রদ্রোহী হিসেবে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা দায়ের করে ।

১৮ই জানুয়ারি ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি দিয়ে জেলগেট থেকে পুনরায় গ্রেফতার করে তাকে ঢাকা সেনানিবাসে কঠোর নিরাপত্তায় বন্দি করে রাখে |

পাঁচমাস পর ১৯শে জুন ঢাকা সেনানিবাসে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামিদের বিচার কাজ শুরু হয় । ১৯৬৯ সালের ২২শে ফেব্রুয়ারি জনগণের অব্যাহত প্রবল চাপের মুখে কেন্দ্রীয় সরকার আগরতলা মুক্তিদানে বাধ্য হয়। কারণ, পূর্ববাংলার জনগণের সর্বাত্মক আন্দোলন এতই উত্তাল হয়ে উঠে যে, তাতে শুধু বিশাল গণঅভ্যুত্থানই না স্বৈরসামরিক শাসক আইয়ুব খানের পতন ঘটে এবং বঙ্গবন্ধু হয়ে ওঠেন বাংলার জনগণের আপোষহীন অকুতোভয় নেতা ।

১৯৭০ সালের নির্বাচনে সমগ্ৰ পাকিস্তানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বিপুল জয় লাভ করে মেজরিটি পায় । কিন্তু পাকিস্তানি সামরিক শাসক সরকার গঠন করতে দেয় না । ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দেন এবং বাংলার মানুষ তার কথায় সাড়া দেয় । তার নির্দেশেই এ দেশ পরিচালিত হতে থাকে । ৭ই মার্চ তিনি রেসকোর্স ময়দানে ঐতিহাসিক ঘোষণা দেন ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্ৰাম’ । হানাদার পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে সশস্ত্ৰ গেরিলা যুদ্ধের প্রস্তুতি নেয়ার আহবান জানান। সমগ্র বাংলাদেশের মানুষ মানসিকভাবে স্বাধীনতা সংগ্রামের জন্য প্রস্তুত হয় । ২৫শে মার্চ কালরাতে নিরস্ত্র বাঙালির ওপর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী সশস্ত্ৰ আক্রমণ চালায় এবং গণহত্যা শুরু করে ।

২৬শে মার্চ প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা দেন এবং যুদ্ধ চালিয়ে যাবার আহবান জানান । এই ঘোষণার সাথে সাথেই পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী তাকে ৩২ নম্বর ধানমন্ডির বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে পাকিস্তানে নিয়ে যায় এবং কারাগারে বন্দি করে রাখে । সমগ্র বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়ে যায় । হানাদার বাহিনীর এই দমন পীড়ন ও পোড়ামাটি নীতি এবং গণহত্যা চালিয়ে বাঙালি জাতিকে ধ্বংস করার চেষ্টা করে । এরই একটি পর্যায়ে আমরা এক মাসে ১৯ বার জায়গা বদল করেও পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাত থেকে রেহাই পাই নাই, আমরা ধরা পড়ে গেলাম ।

আমার মা বেগম ফজিলাতুননেছা মুজিব, আমার ভাই লে. শেখ জামাল, বোন শেখ রেহানা, ছোট ভাই শেখ রাসেল, আমি ও আমার স্বামী ড. ওয়াজেদকে ধানমন্ডি ১৮ নম্বর সড়কে একটি একতলা বাড়িতে বন্দি করে রাখা হলো ।

এক সময়ে পাকিস্তানি হানাদার শাসকগোষ্ঠী তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তানে সবকিছু স্বাভাবিক চলছে ঘোষণা দিল । স্কুল, কলেজ, অফিস, আদালত সবই ঠিকঠাক আছে । সমগ্ৰ বিশ্বকেই তারা দেখাতে চাইল যে এই ভূখণ্ডে ‘মিসক্রিয়োনট’দের তারা দমন করে ফেলেছে আর কোনো সমস্যা নাই, পাকিস্তান ‘খতরা’ থেকে বের হয়ে এসেছে, আল্লাহ্ পাকিস্তানকে রক্ষা করেছে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে দেখাতে চেষ্টা করে বাংলাদেশের সবকিছুই তাদের নিয়ন্ত্রণে এসে গেছে।

১ম বার খাতাগুলি উদ্ধার

এই সময়ে এক মেজর সাহেব এসে বলল, “বাচ্চা লোগ ‘সুকুল’ মে যাও” (বাচ্চারা স্কুলে যাও) । ড. ওয়াজেদ পাকিস্তান অ্যাটমিক এনার্জিতে চাকরি করতেন বলে তিনি নিয়মিত অফিসে যেতে পারতেন । ফলে বাইরে যাবার কিছু সুযোগ ছিল এবং যেহেতু এটা ইন্টারন্যাশনাল অ্যাটমিক এনার্জি কমিশনের সাথে সম্পৃক্ত তাই যুদ্ধের সময়ও কিছু ছাড় পেতো। তাকে নিয়মিত অফিসে যেতে হতো আর সময়মতো ফিরতে হতো। তবে হানাদার বাহিনী সব সময় নজরদারিতে রাখত ।

যাহোক স্কুলে যাবে বাচ্চারা, জামাল, রেহানা আর রাসেল। আমি বললাম বই খাতা কিছুই তো নাই, কী নিয়ে স্কুলে যাবে আর যাবেই বা কীভাবে? জিজ্ঞেস করল বই কোথায়? বললাম, আমাদের বাসায়, আর সে বাসা তো আপনাদের দখলে আছে। ধানমন্ডি ৩২ নম্বর সড়কে বাসা ।

বলল, “ঠিক হ্যায় হাম লে যায়গে; তোম লোগ কিতাব লে আনা ।”
ওরা ঠিক করল জামাল, রেহানা, রাসেলকে নিয়ে যাবে যার যার বই আনতে । আমি বললাম, আমি সাথে যাব। কারণ একা ওদের সাথে আমি আমার ভাইবোনদের ছাড়তে পারি না । তারা রাজি হলো ।

আমার মা আমাকে বললেন, “একবার যেতে পারলে আর কিছু না হোক তোর আকবার লেখা খাতাগুলো যেভাবে পারিস নিয়ে আসিস ।” খাতাগুলো মার ঘরে কোথায় রাখা আছে তাও বলে দিলেন । আমাদের সাথে মিলিটারির দুইটা গাড়ি ও ভারী অস্ত্ৰসহ পাহারাদার গেল ।

২৫শে মার্চের পর এই প্রথম বাসায় ঢুকতে পারলাম। সমস্ত বাড়িতে লুটপাটের চিহ্ন, সব আলমারি খোলা, জিনিসপত্র ছড়ানো ছিটানো । বাথরুমের বেসিন ভাঙী, কাচের টুকরা ছড়ানো, বীভৎস দৃশ্য!

অথবা লুট হয়েছে। কিছু তো নিতেই হবে। আমরা এক ঘর থেকে অন্য ঘরে যাই, পাকিস্তান মিলিটারি আমাদের সাথে সাথে যায়। ভাইবোনদের বললাম, যা পাও বইপত্র হাতে হাতে নিয়ে নেও ।

আমি মায়ের কথামতো জায়গায় গেলাম । ড্রেসিং রুমের আলমারির উপর ডান দিকে আব্বার খাতাগুলি রাখা ছিল, খাতা পেলাম। কিন্তু সাথে মিলিটারির লোক, কী করি? যদি দেখার নাম করে নিয়ে নেয়। সেই ভয় হলো । যাহােক অন্য বই খাতা কিছু হাতে নিয়ে ঘুরে ঘুরে একখানা গায়ে দেবার কাঁথা পড়ে থাকতে দেখলাম, সেই কাঁথাখানা হাতে নিলাম, তারপর এক ফাঁকে খাতাগুলি ঐ কাথায় মুড়িয়ে নিলাম। সাথে দুই একটা বই ম্যাগাজিন পড়েছিল তাও নিলাম ।

আমার মায়ের হাতে সাজানো বাড়ির ধ্বংসস্তুপ দেখে বার বার চোখে পানি আসছিল। কিন্তু নিজেকে শক্ত করলাম। খাতাগুলি পেয়েছি। এইটুকু বড় সাস্তুনা । অনেক স্মৃতি মনে আসছিল।
যখন ফিরলাম মায়ের হাতে খাতাগুলি তুলে দিলাম। পাকিস্তানি সেনারা সমস্ত বাড়ি লুটপাট করেছে, তবে রুলটানা এই খাতাগুলিকে গুরুত্ব দেয় নাই বলেই খাতাগুলি পড়েছিল ।

আব্বার লেখা এই খাতার উদ্ধার আমার মায়ের প্রেরণা ও অনুরোধের ফসল। আমার আব্বা যতবার জেলে যেতেন মা খাতা, কলম দিতেন লেখার জন্য । বার বার তাগাদা দিতেন । আমার আব্বা যখন জেল থেকে মুক্তি পেতেন মা সোজা জেল গেটে যেতেন আকবাকে আনতে আর আকবার লেখাগুলি যেন আসে তা নিশ্চিত করতেন । সেগুলি অতি যত্নে সংরক্ষণ করতেন ।

খাতাগুলি তো পেলাম, কিন্তু কোথায় কীভাবে রাখব?

ঢাকার আরামবাগে আমার ফুফাতো বোন মাখন আপা থাকতেন। তার স্বামী মীর আশরাফ আলী, আব্বার সঙ্গে কোলকাতা থেকেই রাজনীতি করতেন, যেভাবেই হোক তার কাছেই পাঠাবো সিদ্ধান্ত নিলাম । অবশেষে অনেক কষ্ট করে তার কাছে পাঠালাম । আমার বিশ্বাস তিনি যত্ন করে রাখবেন । কীভাবে যে পাঠিয়েছি সে কথা লিখতে গেলে আর এক ইতিহাস হয়ে যাবে, এ বিষয়ে পরে লিখব ।

আমার ফুফাতো বোন পলিথিন ও ছালার চট দিয়ে খাতাগুলো বেঁধে তার মুরগির ঘরের ভিতরে চালের সাথে দড়ি দিয়ে বেঁধে বুলিয়ে রেখেছিলেন, যাতে কখনও কেউ বুঝতে না পারে। কারণ পাকিস্তানি আর্মি সব সময় হঠাৎ হঠাৎ যে কোনো বাড়ি সার্চ করত। তবে ঐ বাড়ির সুবিধা ছিল যে আরামবাগ গলির ভিতর গাড়ি ঢুকতে পারত না ।

স্বাধীনতা যুদ্ধে বিজয়ের পর সেই খাতাগুলি আমার বোন ও দুলাভাই মায়ের হাতে পৌছে দেন। বৃষ্টির পানিতে কিছু নষ্ট হলেও মূল খাতাগুলি মােটামুটি ঠিক ছিল।

২য় বার খাতা উদ্ধার

১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নির্মমভাবে সপরিবারে হত্যা করা হয় | জীবিত কোনো সদস্য ছিল না। সকল সদস্যকেই এই বাড়িতে হত্যা করা হয়েছিল। আমার মা বেগম ফজিলাতুননেছা, ও লে. শেখ জামাল, ছোট ভাই শেখ রাসেল, কামাল ও জামালের নব পরিণীতা স্ত্রী সুলতানা ও রোজী, বঙ্গবন্ধুর সামরিক সচিব কর্নেল জামিল, পুলিশের দু’জন উধ্বতন কর্মকর্তাসহ ১৮ জনকে নির্মমভাবে হত্যা করে । এর পর থেকে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কের বাড়িটি সরকারি দখলে থাকে ।

আমি ও আমার ছোটবোন রেহানা দেশের বাইরে ছিলাম । ৬ বছর বাংলাদেশে ফিরতে পারি নাই । ১৯৮১ সালে যখন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আমাকে সভাপতি নির্বাচিত করে আমি অনেক বাধা-বিঘ্ন অতিক্রম করে দেশে ফিরে আসি ।

দেশে আসার পর আমাকে বিএনপি সরকার আমাদের এই বাড়িতে ঢুকতে দেয়নি । বাড়ির গেটের সামনে রাস্তার উপর বসে মিলাদ পড়ি ।

১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট হত্যাকাণ্ডের পর বাড়িঘর লুটপাট করে সেনাসদস্যরা। কী দুর্ভাগ্য স্বাধীন বাংলাদেশের সেনারা জাতির পিতাকে হত্যা করে । তিনি বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি । আর জাতির পিতা ও রাষ্ট্রপতি থাকা অবস্থায় তাঁকে মৃত্যুবরণ করতে হলো ঘাতকের নির্মম বুলেটের আঘাতে ।

জেনারেল জিয়াউর রহমান তখন ক্ষমতা দখল করে নিজেকে রাষ্ট্রপতি হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিলেন। মে মাসের ৩০ তারিখ জিয়ার মৃত্যু হয়। তার মৃত্যুর পর ১২ই জুন বাড়িটা আমার হাতে হস্তান্তর করে। প্রথমে ঢুকতে পা থেমে গিয়েছিল । জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছিলাম ।

যখন হুঁশ হয়, আমাকে দিয়ে অনেকগুলি কাগজ সই করায় । কী দিয়েছে জানি না। যখন আমার পুরোপুরি জ্ঞান ফিরে আসে তখন আমার মনে পড়ে আব্বার লেখা খাতার কথা, আমি হেঁটে আব্বার শোবার ঘরে ঢুকি | ড্রেসিং রুমে রাখা আলমারির দক্ষিণ দিকে হাত বাড়াই। ধূলিধূসর বাড়ি। মাকড়সার জলে ভরা তার মাঝেই খুঁজে পাই অনেক আকাঙ্ক্ষিত রুলটানা খাতাগুলি ।

আমি শুধু খাতাগুলি হাতে তুলে নিই। আব্বার লেখা ডায়েরি, মায়ের বাজার ও সংসার খরচের হিসাবের খাতা ।

আব্বার লেখাগুলি পেয়েছিলাম। এটাই আমার সব থেকে বড় পাওয়া, সব হারাবার ব্যথা বুকে নিয়ে এই বাড়িতে একমাত্র পাওয়া ছিল এই খাতাগুলি । খুলনায় চাচির বাসায় খাতাগুলি রেখে আসি, চাচির ভাই রবি মামাকে দায়িত্ব দেই, কারণ ঢাকায় আমার কোনো থাকার জায়গা ছিল না, কখনো ছোট ফুফুর বাসা, কখনো মেজো ফুফুর বাসায় থাকতাম ।

লেখাগুলি প্ৰকাশ করার কাজ শুরু

খাতাগুলি প্রকাশ করার উদ্যোগ নিই। ড. এনায়েতুর রহিমের সঙ্গে আমি ও বেবী বই নিয়ে কাজ করতে শুরু করি, তিনি আমেরিকার জর্জ টাউন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর । তার পরামর্শমতো কাজ করি ।

খাতাগুলি জেরোক্স কপি করে ও ফটোকপি করে একসেট রেহানার কাছে রাখি । বেবী টাইপ করানোর দায়িত্ব নেয়।

ড. এনায়েতুর রহিম ও তাঁর স্ত্রী জয়েস রহিম অনুবাদ করতে শুরু করেন। তিনি সবগুলি খাতা অনুবাদ করে দেন ।

কিন্তু ২০০২ সালে তিনি হঠাৎ করে মৃত্যুবরণ করেন। আমাদের কাজ থেমে যায়।

এরপর ঐতিহাসিক প্রফেসর সালাহউদ্দীন সাহেবের পরামর্শে কাজ শুরু করি ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের প্রফেসর সামসুল হুদা হারুন, বাংলা একাডেমির শামসুজ্জামান খান, বেবী মওদুদ ও আমি বসে কাজ শুরু করি। নিনু বাংলায় কম্পিউটার টাইপ করে দেয়, রহমান (রমা) কে দিয়ে ফটোকপি করার কাজ করি । বাড়িতেই আলাদা ফটোকপি মেশিন ক্রয় করি ।

২০০৭ সালে বাংলাদেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণা দেয়া হয় এবং আমাকে গ্রেফতার করে কারাগারে বন্দি করে । ২০০৮ পর্যন্ত বন্দি ছিলাম । আমি বন্দি থাকা অবস্থায় প্রফেসর ড. হারুন মৃত্যুবরণ করেন । এই খবর পেয়ে আমি খুব দুঃখ পাই এবং চিন্তায় পড়ে যাই যে কীভাবে আব্বার বইগুলো শেষ করব । জেলখানায় বসেই আমি অসমাপ্ত আত্মজীবনীর ভূমিকাটা লিখে রাখি। ২০০৮ সালে মুক্তি পেয়ে আবার আমরা বই প্রকাশের কাজে মনোনিবেশ করি ।

এই খাতাগুলির মধ্য থেকে ইতিমধ্যে অসমাপ্ত আত্মজীবনী প্ৰকাশ করা হয়েছে। সেই খাতাগুলি ফেরত পাবার ঘটনা আমি ঐ বইয়ের ভূমিকায় লিখেছি।

এরপর আমরা আব্বার ডায়েরি, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা, স্মৃতিকথা এবং চীন ভ্ৰমণ নিয়ে কাজ শুরু করি । আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার উপর প্রফেসর এনায়েতুর রহিম সাহেব বেশ কিছু গবেষণা করে যান এবং সেটাও প্রকাশের জন্য আমরা কাজ করতে থাকি ।

অত্যন্ত দুঃখের বিষয়, ২০১৩ সালে বেবী মওদুদ মৃত্যুবরণ করেন। আমি বড় একা হয়ে যাই । যাহোক বেবী বেঁচে থাকতেই আমরা অসমাপ্ত আত্মজীবনী যেটা ড. ফকরুল ইংরেজিতে অনুবাদ করে দিয়েছেন সেটা আমরা প্রকাশ করেছি। যা ইতোমধ্যে বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদ হয়েছে। আমরা ১৯৬৬ সাল থেকে ১৯৬৮ সাল পর্যন্ত লেখা ডায়েরি বই আকারে প্রকাশ করবার প্রস্তুতি নিয়েছি। অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান পরামর্শ দিচ্ছেন। প্রতিটি লেখা বারবার পড়ে সংশোধন করে দিয়েছেন ।

কারাগারের রোজানামচা

বর্তমান বইটার নাম ছোট বোন রেহানা রেখেছে-‘কারাগারের রোজনামচা’ । এতটা বছর বুকে আগলে রেখেছি যে অমূল্য সম্পদ-আজ তা তুলে দিলাম বাংলার জনগণের হাতে ।

ড. ফকরুল আলমের অনুবাদ করে দেওয়া ইংরেজি সংস্করণের কাজ এখনও চলছে।

১৯৬৬ সালে ৬ দফা দেবার পর বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা গ্রেফতার হন । ১৯৬৬ সাল থেকে ১৯৬৯ সাল পর্যন্ত বন্দি থাকেন । সেই সময়ে কারাগারে প্রতিদিনের ডায়েরি লেখা শুরু করেন । ১৯৬৮ সাল পর্যন্ত লেখাগুলি এই বইয়ে প্ৰকাশ করা হলো ।

একই সাথে আর একটি খাতা খুঁজে পাই-তারও ইতিহাস রয়েছে। ১৯৫৮ সালের ৭ই অক্টোবর আইয়ুব খান মার্শল ল’ জারি করে ১২ই অক্টোবর আব্বাকে গ্রেফতার এবং তার রাজনীতি নিষিদ্ধ করে দেয় । এরপর ১৯৬০ সালের ডিসেম্বর মাসে যখন কারাগার থেকে মুক্তি পান তখন তাঁর লেখা খাতাগুলির মধ্যে দুইখানা খাতা সরকার বাজেয়াপ্ত করে । এই খাতাটা তার মধ্যে একখানা, যা আমি ২০১৪ সালে খুঁজে পেয়েছি। SB’র কাছ থেকে পাওয়া এই খাতাটা । S. B. (Special Branch) এর অফিসাররা খুবই কষ্ট করে খাতাখানা খুঁজে দিয়েছেন, তাই তাদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। এই খাতাটা আরও আগের লেখা । সেই বন্দি থাকা অবস্থায় এই খাতাটায় তিনি জেলখানার ভিতরে অনেক কথা লিখেছিলেন । এই লেখার একটা নামও তিনি দিয়েছিলেন :
কারাগারের রোজানামচা – শেখ মুজিবুর রহমান

কারাগারের জীবন

ভাষা আন্দোলন বঙ্গবন্ধু শুরু করেন ১৯৪৮ সালে । ১১ই মার্চ বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষার মর্যাদা দেয়ার দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন এবং গ্রেফতার হন । ১৫ই মার্চ তিনি মুক্তি পান। ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে সমগ্ৰ দেশ সফর শুরু করেন। জনমত সৃষ্টি করতে থাকেন। প্রতি জেলায় সংগ্রাম পরিষদ গড়ে তোলেন । ১৯৪৮ সালের ১১ই সেপ্টেম্বর তৎকালীন সরকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে ফরিদপুরে গ্রেফতার করে। ১৯৪৯ সালের ২১শে জানুয়ারি মুক্তি পান। মুক্তি পেয়েই আবার দেশব্যাপী জনমত সৃষ্টির জন্য সফর শুরু করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের দাবির প্রতি তিনি সমর্থন জানান এবং তাদের ন্যায্য দাবির পক্ষে আন্দোলনে অংশ নেন । সরকার ১৯৪৯ সালের ১৯শে এপ্রিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেফতার করে । জুলাই মাসে তিনি মুক্তি পান । এইভাবে কয়েক দফা গ্রেফতার ও মুক্তির পর ১৯৪৯ সালের ১৪ই অক্টোবর আর্মানিটােলা ময়দানে জনসভা শেষে ভুখা মিছিল বের করেন। দরিদ্র মানুষের খাদ্যের দাবিতে ভুখা মিছিল করতে গেলে আওয়ামী লীগের সভাপতি মওলানা ভাসানী, সাধারণ সম্পাদক শামসুল হক ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গ্রেফতার হন ।

এবারে তাকে প্রায় দু’বছর পাঁচ মাস জেলে আটক রাখা হয়। ১৯৫২ সালের ২৬শে ফেব্রুয়ারি ফরিদপুর জেল থেকে মুক্তি লাভ করেন ।

১৯৫৪ সালের ৩০শে মে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুক্তফ্রন্ট মন্ত্রিসভার সদস্য হিসেবে করাচি থেকে ঢাকায় প্রত্যাবর্তন করে গ্রেফতার হন এবং ২৩শে ডিসেম্বর মুক্তি লাভ করেন।

১৯৫৮ সালের ১২ই অক্টোবর তৎকালীন সামরিক সরকার কর্তৃক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেফতার করা হয় । এবারে প্রায় চৌদ্দ মাস জেলখানায় বন্দি থাকার পর তাকে মুক্তি দিয়ে পুনরায় জেল গোটেই গ্রেফতার করা হয় । ১৯৬০ সালের ৭ই ডিসেম্বর হাইকোর্টে রিট আবেদন করে মুক্তি লাভ করেন।

১৯৬২ সালের ৬ই ফেব্রুয়ারি আবার জননিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার হয়ে তিনি ১৮ই জুন মুক্তি লাভ করেন ।
১৯৬৪ সালে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ১৪ দিন পূর্বে তিনি আবার গ্রেফতার হন ।

১৯৬৫ সালে রাষ্ট্রদ্রোহিতা ও আপত্তিকর বক্তব্য প্রদানের অভিযোগে মামলা দায়ের করে তাকে এক বছরের কারাদণ্ড প্ৰদান করা হয় । পরবর্তী সময়ে হাইকোর্টের নির্দেশে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান ।

১৯৬৬ সালের ৫ই ফেব্রুয়ারি লাহোরে বিরোধী দলসমূহের জাতীয় সম্মেলনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঐতিহাসিক ৬ দফা দাবি পেশ করেন । ১লা মার্চ তিনি আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন ।
তিনি যে ছয় দফা দাবি পেশ করেন তা বাংলার মানুষের বাঁচার দাবি হিসেবে করেন, সেখানে স্বায়ত্তশাসনের দাবি উত্থাপন করেন যার অন্তর্নিহিত লক্ষ্য ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতা ।

একের পর এক দাবি নিয়ে জনগণের অধিকারের কথা বলার কারণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৬৬ সালের প্রথম তিন মাসে ঢাকা, চট্টগ্রাম, যশোহর, ময়মনসিংহ, সিলেট, খুলনা, পাবনা, ফরিদপুরসহ বিভিন্ন শহরে আটবার গ্রেফতার হন ও জামিন পান । নারায়ণগঞ্জে সর্বশেষ মিটিং করে ঢাকায় ফিরে এসেই ৮ই মে মধ্য রাতে গ্রেফতার হন । তাঁকে কারাগারের অন্ধকার কুঠুরিতে জীবন কাটাতে হয়। শোষকগোষ্ঠীর শোষণের বিরুদ্ধে বক্তৃতা দিয়েছেন, বাংলাদেশের মানুষের ন্যায্য দাবি তুলে ধরেছেন। ফলে যখনই জনসভায় বক্তৃতা করেছেন তখনই তার বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে গ্রেফতার করেছে সরকার ।

১৯৬৮ সালের ৩রা জানুয়ারি পাকিস্তান সরকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে এক নম্বর আসামি করে মোট ৩৫ জন বাঙালি সেনা ও সিএসপি অফিসারের বিরুদ্ধে পাকিস্তানকে বিচ্ছিন্ন করার অভিযোগ এনে রাষ্ট্রদ্রোহী হিসেবে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা দায়ের করে ।

১৮ই জানুয়ারি ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি দিয়ে জেলগেট থেকে পুনরায় গ্রেফতার করে তাকে ঢাকা সেনানিবাসে কঠোর নিরাপত্তায় বন্দি করে রাখে |

পাঁচমাস পর ১৯শে জুন ঢাকা সেনানিবাসে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামিদের বিচার কাজ শুরু হয় । ১৯৬৯ সালের ২২শে ফেব্রুয়ারি জনগণের অব্যাহত প্রবল চাপের মুখে কেন্দ্রীয় সরকার আগরতলা মুক্তিদানে বাধ্য হয়। কারণ, পূর্ববাংলার জনগণের সর্বাত্মক আন্দোলন এতই উত্তাল হয়ে উঠে যে, তাতে শুধু বিশাল গণঅভ্যুত্থানই না স্বৈরসামরিক শাসক আইয়ুব খানের পতন ঘটে এবং বঙ্গবন্ধু হয়ে ওঠেন বাংলার জনগণের আপোষহীন অকুতোভয় নেতা ।

১৯৭০ সালের নির্বাচনে সমগ্ৰ পাকিস্তানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বিপুল জয় লাভ করে মেজরিটি পায় । কিন্তু পাকিস্তানি সামরিক শাসক সরকার গঠন করতে দেয় না । ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দেন এবং বাংলার মানুষ তার কথায় সাড়া দেয় । তার নির্দেশেই এ দেশ পরিচালিত হতে থাকে । ৭ই মার্চ তিনি রেসকোর্স ময়দানে ঐতিহাসিক ঘোষণা দেন ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্ৰাম’ । হানাদার পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে সশস্ত্ৰ গেরিলা যুদ্ধের প্রস্তুতি নেয়ার আহবান জানান। সমগ্র বাংলাদেশের মানুষ মানসিকভাবে স্বাধীনতা সংগ্রামের জন্য প্রস্তুত হয় । ২৫শে মার্চ কালরাতে নিরস্ত্র বাঙালির ওপর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী সশস্ত্ৰ আক্রমণ চালায় এবং গণহত্যা শুরু করে ।

২৬শে মার্চ প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা দেন এবং যুদ্ধ চালিয়ে যাবার আহবান জানান । এই ঘোষণার সাথে সাথেই পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী তাকে ৩২ নম্বর ধানমন্ডির বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে পাকিস্তানে নিয়ে যায় এবং কারাগারে বন্দি করে রাখে । সমগ্র বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়ে যায় । হানাদার বাহিনীর এই দমন পীড়ন ও পোড়ামাটি নীতি এবং গণহত্যা চালিয়ে বাঙালি জাতিকে ধ্বংস করার চেষ্টা করে । এরই একটি পর্যায়ে আমরা এক মাসে ১৯ বার জায়গা বদল করেও পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাত থেকে রেহাই পাই নাই, আমরা ধরা পড়ে গেলাম ।

আমার মা বেগম ফজিলাতুননেছা মুজিব, আমার ভাই লে. শেখ জামাল, বোন শেখ রেহানা, ছোট ভাই শেখ রাসেল, আমি ও আমার স্বামী ড. ওয়াজেদকে ধানমন্ডি ১৮ নম্বর সড়কে একটি একতলা বাড়িতে বন্দি করে রাখা হলো ।

এক সময়ে পাকিস্তানি হানাদার শাসকগোষ্ঠী তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তানে সবকিছু স্বাভাবিক চলছে ঘোষণা দিল । স্কুল, কলেজ, অফিস, আদালত সবই ঠিকঠাক আছে । সমগ্ৰ বিশ্বকেই তারা দেখাতে চাইল যে এই ভূখণ্ডে ‘মিসক্রিয়োনট’দের তারা দমন করে ফেলেছে আর কোনো সমস্যা নাই, পাকিস্তান ‘খতরা’ থেকে বের হয়ে এসেছে, আল্লাহ্ পাকিস্তানকে রক্ষা করেছে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে দেখাতে চেষ্টা করে বাংলাদেশের সবকিছুই তাদের নিয়ন্ত্রণে এসে গেছে।

১ম বার খাতাগুলি উদ্ধার

এই সময়ে এক মেজর সাহেব এসে বলল, “বাচ্চা লোগ ‘সুকুল’ মে যাও” (বাচ্চারা স্কুলে যাও) । ড. ওয়াজেদ পাকিস্তান অ্যাটমিক এনার্জিতে চাকরি করতেন বলে তিনি নিয়মিত অফিসে যেতে পারতেন । ফলে বাইরে যাবার কিছু সুযোগ ছিল এবং যেহেতু এটা ইন্টারন্যাশনাল অ্যাটমিক এনার্জি কমিশনের সাথে সম্পৃক্ত তাই যুদ্ধের সময়ও কিছু ছাড় পেতো। তাকে নিয়মিত অফিসে যেতে হতো আর সময়মতো ফিরতে হতো। তবে হানাদার বাহিনী সব সময় নজরদারিতে রাখত ।

যাহোক স্কুলে যাবে বাচ্চারা, জামাল, রেহানা আর রাসেল। আমি বললাম বই খাতা কিছুই তো নাই, কী নিয়ে স্কুলে যাবে আর যাবেই বা কীভাবে? জিজ্ঞেস করল বই কোথায়? বললাম, আমাদের বাসায়, আর সে বাসা তো আপনাদের দখলে আছে। ধানমন্ডি ৩২ নম্বর সড়কে বাসা ।

বলল, “ঠিক হ্যায় হাম লে যায়গে; তোম লোগ কিতাব লে আনা ।”
ওরা ঠিক করল জামাল, রেহানা, রাসেলকে নিয়ে যাবে যার যার বই আনতে । আমি বললাম, আমি সাথে যাব। কারণ একা ওদের সাথে আমি আমার ভাইবোনদের ছাড়তে পারি না । তারা রাজি হলো ।

আমার মা আমাকে বললেন, “একবার যেতে পারলে আর কিছু না হোক তোর আকবার লেখা খাতাগুলো যেভাবে পারিস নিয়ে আসিস ।” খাতাগুলো মার ঘরে কোথায় রাখা আছে তাও বলে দিলেন । আমাদের সাথে মিলিটারির দুইটা গাড়ি ও ভারী অস্ত্ৰসহ পাহারাদার গেল ।

২৫শে মার্চের পর এই প্রথম বাসায় ঢুকতে পারলাম। সমস্ত বাড়িতে লুটপাটের চিহ্ন, সব আলমারি খোলা, জিনিসপত্র ছড়ানো ছিটানো । বাথরুমের বেসিন ভাঙী, কাচের টুকরা ছড়ানো, বীভৎস দৃশ্য!

অথবা লুট হয়েছে। কিছু তো নিতেই হবে। আমরা এক ঘর থেকে অন্য ঘরে যাই, পাকিস্তান মিলিটারি আমাদের সাথে সাথে যায়। ভাইবোনদের বললাম, যা পাও বইপত্র হাতে হাতে নিয়ে নেও ।

আমি মায়ের কথামতো জায়গায় গেলাম । ড্রেসিং রুমের আলমারির উপর ডান দিকে আব্বার খাতাগুলি রাখা ছিল, খাতা পেলাম। কিন্তু সাথে মিলিটারির লোক, কী করি? যদি দেখার নাম করে নিয়ে নেয়। সেই ভয় হলো । যাহােক অন্য বই খাতা কিছু হাতে নিয়ে ঘুরে ঘুরে একখানা গায়ে দেবার কাঁথা পড়ে থাকতে দেখলাম, সেই কাঁথাখানা হাতে নিলাম, তারপর এক ফাঁকে খাতাগুলি ঐ কাথায় মুড়িয়ে নিলাম। সাথে দুই একটা বই ম্যাগাজিন পড়েছিল তাও নিলাম ।

আমার মায়ের হাতে সাজানো বাড়ির ধ্বংসস্তুপ দেখে বার বার চোখে পানি আসছিল। কিন্তু নিজেকে শক্ত করলাম। খাতাগুলি পেয়েছি। এইটুকু বড় সাস্তুনা । অনেক স্মৃতি মনে আসছিল।
যখন ফিরলাম মায়ের হাতে খাতাগুলি তুলে দিলাম। পাকিস্তানি সেনারা সমস্ত বাড়ি লুটপাট করেছে, তবে রুলটানা এই খাতাগুলিকে গুরুত্ব দেয় নাই বলেই খাতাগুলি পড়েছিল ।

আব্বার লেখা এই খাতার উদ্ধার আমার মায়ের প্রেরণা ও অনুরোধের ফসল। আমার আব্বা যতবার জেলে যেতেন মা খাতা, কলম দিতেন লেখার জন্য । বার বার তাগাদা দিতেন । আমার আব্বা যখন জেল থেকে মুক্তি পেতেন মা সোজা জেল গেটে যেতেন আকবাকে আনতে আর আকবার লেখাগুলি যেন আসে তা নিশ্চিত করতেন । সেগুলি অতি যত্নে সংরক্ষণ করতেন ।

খাতাগুলি তো পেলাম, কিন্তু কোথায় কীভাবে রাখব?

ঢাকার আরামবাগে আমার ফুফাতো বোন মাখন আপা থাকতেন। তার স্বামী মীর আশরাফ আলী, আব্বার সঙ্গে কোলকাতা থেকেই রাজনীতি করতেন, যেভাবেই হোক তার কাছেই পাঠাবো সিদ্ধান্ত নিলাম । অবশেষে অনেক কষ্ট করে তার কাছে পাঠালাম । আমার বিশ্বাস তিনি যত্ন করে রাখবেন । কীভাবে যে পাঠিয়েছি সে কথা লিখতে গেলে আর এক ইতিহাস হয়ে যাবে, এ বিষয়ে পরে লিখব ।

আমার ফুফাতো বোন পলিথিন ও ছালার চট দিয়ে খাতাগুলো বেঁধে তার মুরগির ঘরের ভিতরে চালের সাথে দড়ি দিয়ে বেঁধে বুলিয়ে রেখেছিলেন, যাতে কখনও কেউ বুঝতে না পারে। কারণ পাকিস্তানি আর্মি সব সময় হঠাৎ হঠাৎ যে কোনো বাড়ি সার্চ করত। তবে ঐ বাড়ির সুবিধা ছিল যে আরামবাগ গলির ভিতর গাড়ি ঢুকতে পারত না ।

স্বাধীনতা যুদ্ধে বিজয়ের পর সেই খাতাগুলি আমার বোন ও দুলাভাই মায়ের হাতে পৌছে দেন। বৃষ্টির পানিতে কিছু নষ্ট হলেও মূল খাতাগুলি মােটামুটি ঠিক ছিল।

২য় বার খাতা উদ্ধার

১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নির্মমভাবে সপরিবারে হত্যা করা হয় | জীবিত কোনো সদস্য ছিল না। সকল সদস্যকেই এই বাড়িতে হত্যা করা হয়েছিল। আমার মা বেগম ফজিলাতুননেছা, ও লে. শেখ জামাল, ছোট ভাই শেখ রাসেল, কামাল ও জামালের নব পরিণীতা স্ত্রী সুলতানা ও রোজী, বঙ্গবন্ধুর সামরিক সচিব কর্নেল জামিল, পুলিশের দু’জন উধ্বতন কর্মকর্তাসহ ১৮ জনকে নির্মমভাবে হত্যা করে । এর পর থেকে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কের বাড়িটি সরকারি দখলে থাকে ।

আমি ও আমার ছোটবোন রেহানা দেশের বাইরে ছিলাম । ৬ বছর বাংলাদেশে ফিরতে পারি নাই । ১৯৮১ সালে যখন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আমাকে সভাপতি নির্বাচিত করে আমি অনেক বাধা-বিঘ্ন অতিক্রম করে দেশে ফিরে আসি ।

দেশে আসার পর আমাকে বিএনপি সরকার আমাদের এই বাড়িতে ঢুকতে দেয়নি । বাড়ির গেটের সামনে রাস্তার উপর বসে মিলাদ পড়ি ।

১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট হত্যাকাণ্ডের পর বাড়িঘর লুটপাট করে সেনাসদস্যরা। কী দুর্ভাগ্য স্বাধীন বাংলাদেশের সেনারা জাতির পিতাকে হত্যা করে । তিনি বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি । আর জাতির পিতা ও রাষ্ট্রপতি থাকা অবস্থায় তাঁকে মৃত্যুবরণ করতে হলো ঘাতকের নির্মম বুলেটের আঘাতে ।

জেনারেল জিয়াউর রহমান তখন ক্ষমতা দখল করে নিজেকে রাষ্ট্রপতি হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিলেন। মে মাসের ৩০ তারিখ জিয়ার মৃত্যু হয়। তার মৃত্যুর পর ১২ই জুন বাড়িটা আমার হাতে হস্তান্তর করে। প্রথমে ঢুকতে পা থেমে গিয়েছিল । জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছিলাম ।

যখন হুঁশ হয়, আমাকে দিয়ে অনেকগুলি কাগজ সই করায় । কী দিয়েছে জানি না। যখন আমার পুরোপুরি জ্ঞান ফিরে আসে তখন আমার মনে পড়ে আব্বার লেখা খাতার কথা, আমি হেঁটে আব্বার শোবার ঘরে ঢুকি | ড্রেসিং রুমে রাখা আলমারির দক্ষিণ দিকে হাত বাড়াই। ধূলিধূসর বাড়ি। মাকড়সার জলে ভরা তার মাঝেই খুঁজে পাই অনেক আকাঙ্ক্ষিত রুলটানা খাতাগুলি ।

আমি শুধু খাতাগুলি হাতে তুলে নিই। আব্বার লেখা ডায়েরি, মায়ের বাজার ও সংসার খরচের হিসাবের খাতা ।

আব্বার লেখাগুলি পেয়েছিলাম। এটাই আমার সব থেকে বড় পাওয়া, সব হারাবার ব্যথা বুকে নিয়ে এই বাড়িতে একমাত্র পাওয়া ছিল এই খাতাগুলি । খুলনায় চাচির বাসায় খাতাগুলি রেখে আসি, চাচির ভাই রবি মামাকে দায়িত্ব দেই, কারণ ঢাকায় আমার কোনো থাকার জায়গা ছিল না, কখনো ছোট ফুফুর বাসা, কখনো মেজো ফুফুর বাসায় থাকতাম ।

লেখাগুলি প্ৰকাশ করার কাজ শুরু

খাতাগুলি প্রকাশ করার উদ্যোগ নিই। ড. এনায়েতুর রহিমের সঙ্গে আমি ও বেবী বই নিয়ে কাজ করতে শুরু করি, তিনি আমেরিকার জর্জ টাউন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর । তার পরামর্শমতো কাজ করি ।

খাতাগুলি জেরোক্স কপি করে ও ফটোকপি করে একসেট রেহানার কাছে রাখি । বেবী টাইপ করানোর দায়িত্ব নেয়।

ড. এনায়েতুর রহিম ও তাঁর স্ত্রী জয়েস রহিম অনুবাদ করতে শুরু করেন। তিনি সবগুলি খাতা অনুবাদ করে দেন ।

কিন্তু ২০০২ সালে তিনি হঠাৎ করে মৃত্যুবরণ করেন। আমাদের কাজ থেমে যায়।

এরপর ঐতিহাসিক প্রফেসর সালাহউদ্দীন সাহেবের পরামর্শে কাজ শুরু করি ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের প্রফেসর সামসুল হুদা হারুন, বাংলা একাডেমির শামসুজ্জামান খান, বেবী মওদুদ ও আমি বসে কাজ শুরু করি। নিনু বাংলায় কম্পিউটার টাইপ করে দেয়, রহমান (রমা) কে দিয়ে ফটোকপি করার কাজ করি । বাড়িতেই আলাদা ফটোকপি মেশিন ক্রয় করি ।

২০০৭ সালে বাংলাদেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণা দেয়া হয় এবং আমাকে গ্রেফতার করে কারাগারে বন্দি করে । ২০০৮ পর্যন্ত বন্দি ছিলাম । আমি বন্দি থাকা অবস্থায় প্রফেসর ড. হারুন মৃত্যুবরণ করেন । এই খবর পেয়ে আমি খুব দুঃখ পাই এবং চিন্তায় পড়ে যাই যে কীভাবে আব্বার বইগুলো শেষ করব । জেলখানায় বসেই আমি অসমাপ্ত আত্মজীবনীর ভূমিকাটা লিখে রাখি। ২০০৮ সালে মুক্তি পেয়ে আবার আমরা বই প্রকাশের কাজে মনোনিবেশ করি ।

এই খাতাগুলির মধ্য থেকে ইতিমধ্যে অসমাপ্ত আত্মজীবনী প্ৰকাশ করা হয়েছে। সেই খাতাগুলি ফেরত পাবার ঘটনা আমি ঐ বইয়ের ভূমিকায় লিখেছি।

এরপর আমরা আব্বার ডায়েরি, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা, স্মৃতিকথা এবং চীন ভ্ৰমণ নিয়ে কাজ শুরু করি । আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার উপর প্রফেসর এনায়েতুর রহিম সাহেব বেশ কিছু গবেষণা করে যান এবং সেটাও প্রকাশের জন্য আমরা কাজ করতে থাকি ।

অত্যন্ত দুঃখের বিষয়, ২০১৩ সালে বেবী মওদুদ মৃত্যুবরণ করেন। আমি বড় একা হয়ে যাই । যাহোক বেবী বেঁচে থাকতেই আমরা অসমাপ্ত আত্মজীবনী যেটা ড. ফকরুল ইংরেজিতে অনুবাদ করে দিয়েছেন সেটা আমরা প্রকাশ করেছি। যা ইতোমধ্যে বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদ হয়েছে। আমরা ১৯৬৬ সাল থেকে ১৯৬৮ সাল পর্যন্ত লেখা ডায়েরি বই আকারে প্রকাশ করবার প্রস্তুতি নিয়েছি। অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান পরামর্শ দিচ্ছেন। প্রতিটি লেখা বারবার পড়ে সংশোধন করে দিয়েছেন ।

কারাগারের রোজানামচা

বর্তমান বইটার নাম ছোট বোন রেহানা রেখেছে-‘কারাগারের রোজনামচা’ । এতটা বছর বুকে আগলে রেখেছি যে অমূল্য সম্পদ-আজ তা তুলে দিলাম বাংলার জনগণের হাতে ।

ড. ফকরুল আলমের অনুবাদ করে দেওয়া ইংরেজি সংস্করণের কাজ এখনও চলছে।

১৯৬৬ সালে ৬ দফা দেবার পর বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা গ্রেফতার হন । ১৯৬৬ সাল থেকে ১৯৬৯ সাল পর্যন্ত বন্দি থাকেন । সেই সময়ে কারাগারে প্রতিদিনের ডায়েরি লেখা শুরু করেন । ১৯৬৮ সাল পর্যন্ত লেখাগুলি এই বইয়ে প্ৰকাশ করা হলো ।

একই সাথে আর একটি খাতা খুঁজে পাই-তারও ইতিহাস রয়েছে। ১৯৫৮ সালের ৭ই অক্টোবর আইয়ুব খান মার্শল ল’ জারি করে ১২ই অক্টোবর আব্বাকে গ্রেফতার এবং তার রাজনীতি নিষিদ্ধ করে দেয় । এরপর ১৯৬০ সালের ডিসেম্বর মাসে যখন কারাগার থেকে মুক্তি পান তখন তাঁর লেখা খাতাগুলির মধ্যে দুইখানা খাতা সরকার বাজেয়াপ্ত করে । এই খাতাটা তার মধ্যে একখানা, যা আমি ২০১৪ সালে খুঁজে পেয়েছি। SB’র কাছ থেকে পাওয়া এই খাতাটা । S. B. (Special Branch) এর অফিসাররা খুবই কষ্ট করে খাতাখানা খুঁজে দিয়েছেন, তাই তাদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। এই খাতাটা আরও আগের লেখা । সেই বন্দি থাকা অবস্থায় এই খাতাটায় তিনি জেলখানার ভিতরে অনেক কথা লিখেছিলেন । এই লেখার একটা নামও তিনি দিয়েছিলেন :

থালা বাটি কম্বল
জেলখানার সম্বল ।

এই লেখার মধ্য দিয়ে কারাগারের রোজনামচা পড়ার সময় জেলখানা সম্পর্কে পাঠকের একটা ধারণা হবে । আর এই লেখা থেকে জেলের জীবনযাপন এবং কয়েদিদের অনেক অজানা কথা, অপরাধীদের কথা, কেন তারা এই অপরাধ জগতে পা দিয়েছিল সেসব কথা জানা যাবে ।

জেলখানায় সেই যুগে অনেক শব্দ ব্যবহার হতো। এখন অবশ্য সেসব অনেক পরিবর্তন হয়ে গেছে। তারপরও মানুষ জানতে পারবে বহু অজানা কাহিনি ।

৬ দফা দাবি পেশ করে যে প্রচার কাজ তিনি শুরু করেছিলেন। সেই সময় তাকে গ্রেফতার করা হয় ।

তাঁর গ্রেফতারের পর তখনকার রাজনৈতিক পরিস্থিতি, পত্র-পত্রিকার অবস্থা, শাসকদের নির্যাতন, ৬ দফা বাদ দিয়ে মানুষের দৃষ্টি ভিন্ন দিকে নিয়ে যাবার চেষ্টা ইত্যাদি বিষয় তিনি তুলে ধরেছেন। মানুষের মুক্তির দাবিতে আন্দোলন ও সংগ্রাম তিনি করেছেন যার অন্তর্নিহিত লক্ষ্য ছিল বাংলাদেশের জনগণের স্বাধীনতা অর্জন |

বাংলার মানুষ যে স্বাধীন হবে এ আত্মবিশ্বাস বার বার তাঁর লেখায় ফুটে উঠেছে। এত আত্মপ্রত্যয় নিয়ে পৃথিবীর আর কোনো নেতা ভবিষ্যদবাণী করতে পেরেছেন কিনা আমি জানি না ।

ধাপে ধাপে মানুষকে স্বাধীনতার মন্ত্রে দীক্ষিত করেছেন। উজীবিত করেছেন।

৬ দফা ছিল সেই মুক্তি সনদ, সংগ্রামের পথ বেয়ে যা এক দফায় পরিণত হয়েছিল, সেই এক দফা স্বাধীনতা । অত্যন্ত সুচারুরূপে পরিকল্পনা করে প্রতিটি পদক্ষেপ তিনি গ্ৰহণ করেছিলেন। সামরিক শাসকগোষ্ঠী হয়তো কিছুটা ধারণা হার মানতে বাধ্য হয়েছিল ।

৬ দফাকে বাদ দিয়ে কারা ৮ দফা করে আন্দোলন ভিন্নখাতে নিয়ে যাবার চেষ্টা হয়েছিল, সে কাহিনিও এই লেখায় পাওয়া যাবে।

দীর্ঘ কারাবাসের ফলে তাঁর শরীর যে মাঝে মাঝে অসুস্থ হয়ে যেত। তিনি সে কথা আমাদের কখনো জানতে দেন নাই। আমি এই ডায়েরিটা পড়বার পর অনেক অজানা কথা জানার সুযোগ পেয়েছি। ভীষণ কষ্ট হয় যখন দেখি অসুস্থ-সেবা করার কেউ নেই, কারাগারে একাকী বন্দি অর্থাৎ Solitary confinement. কখনো কোনো বন্দিকে এক সপ্তাহের বেশি একাকী রাখতে পারে না । যদি কেউ কোনো শাস্তি পায়, সেই শাস্তি হিসেবে এই এক সপ্তাহ রাখতে পারে। কিন্তু বিনা বিচারেই তাকে একাকী কারাগারে বন্দি করে রেখেছিল । তার অপরাধ ছিল তিনি বাংলার মানুষের অধিকারের কথা বার বার বলেছেন ।

বাংলার মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে চেয়েছেন; ক্ষুধা, দারিদ্র্য থেকে মুক্তি দিতে চেয়েছেন । বাংলার শোষিত বঞ্চিত মানুষকে শোষণের হাত থেকে মুক্তি দিয়ে উন্নত জীবন দিতে চেয়েছেন ।

গাছপালা, পশু-পাখি, জেলখানায় যারা অবাধে বিচরণ করতে পারত। তারাই ছিল একমাত্র সাথি । এক জোড়া হলুদ পাখির কথা কী সুন্দরভাবে তাঁর লেখনীতে ফুটে উঠেছে তা আমি ভাষায় বর্ণনা করতে পারব না। একটা মুরগি পালতেন, সেই মুরগিটা সম্পর্কে চমৎকার বর্ণনা দিয়েছেন। ঐ মুরগিটার মৃত্যু তাকে কতটা ব্যথিত করেছে সেটাও তিনি তুলে ধরেছেন অতি চমৎকারভাবে ।
কারাগারে আওয়ামী লীগের নেতা-কমীদের দুঃখ দুৰ্দশা নিয়ে তাঁর উদ্বেগ-দলের প্রতিটি সদস্যকে তিনি কতটা ভালোবাসতেন, তাদের কল্যাণে কত চিন্তিত থাকতেন সেকথাও অকাতরে বলেছেন । তিনি নিজের কষ্টের কথা সেখানে বলেন নাই। শুধু একাকী থাকার কথা বার বার উল্লেখ করেছেন ।

জেলখানায় পাগলা গারদ আছে তার কাছেরই সেলে তাকে বন্দি রাখা হয়েছিল । সেই পাগলদের সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্না তাদের আচার-আচরণ অত্যন্ত সংবেদনশীলতার সাথে তিনি তুলে ধরেছেন । এদের কারণে রাতের পর রাত ঘুমাতে পারতেন না । কষ্ট হতো। কিন্তু নিজের কথা না বলে তাদের দুঃখের ইতিহাস তুলে ধরেছেন। মানবদরদি নেতা ছাড়া বোধহয় এই বর্ণনা দেওয়া আর কারো পক্ষে সম্ভব নয় ।

কী অস্বাভাবিক অবস্থার মধ্য দিয়ে আমাদের জীবন চলত তা তিনি বুঝতেন, কিন্তু আমার মায়ের ওপর ছিল অগাধ বিশ্বাস । আমার দাদা-দাদি সময় সময় ছেলেকে উৎসাহ দিয়েছেন, সহযোগিতা করেছেন । বাবা-মায়ের প্রতি তার গভীর ভালোবাসা ও শ্রদ্ধাবোধ এই লেখায় পাওয়া যায়। যত বয়সই হোক আর যত বড় নেতাই তিনি হন, তিনি যে বাবা মায়ের আদরের ‘খোকা’ সে কথাটা আমরা উপলব্ধি করি যখন তিনি বাবা মায়ের কথা লিখেছেন । গভীর ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা পিতা-মাতার প্রতি প্ৰদৰ্শন খুব কম লোক দেখাতে পারেন। তার উপর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন যে জেল থেকে বের হয়ে বাবা মাকে দেখতে পারবেন। কিনা, কারণ তাদের বয়স হয়েছে। সবকিছু ছাপিয়ে দেশ ও দেশের মানুষ ছিল সর্বোচ্চ স্থানে। আর এই দায়িত্ব পালনে পরিবারের সমর্থন সবসময় তিনি পেয়েছেন। এত আত্মত্যাগ করেছেন বলেই তাে আজ পৃথিবীর বুকে বাঙালি জাতি একটা রাষ্ট্র পেয়েছে। এই তুলনাহীন অর্জনের জন্যেই তিনি আজ এই জাতির পিতা । জাতি হিসেবে আতপরিচয় পেয়েছে । বাংলা ভাষা রাষ্ট্রভাষার মর্যাদা পেয়েছে।

১৯৬৮ সালের জানুয়ারি মাসের ১৮ তারিখ ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে কুর্মিটোলা ক্যান্টনমেন্টে বন্দি করে নিয়ে যাওয়া হয়। একাকী একটা ঘরে দীর্ঘদিন বন্দি থাকেন। একটা ঘর গাঢ় লাল রঙের মোটা পর্দা, কাচে লাল রং করা, উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন লাইট চব্বিশ ঘণ্টা জ্বালানো থাকা অবস্থায় দীর্ঘদিন বন্দি থাকতে হয়েছে। এটাও চরম অত্যাচার, যা দিনের পর দিন তার উপর করা হয়েছিল।

পাঁচ মাস পর একখানা খাতা পান লেখার জন্য । তিনি সেখানে উল্লেখ করেছেন যে তাকে এমনভাবে একটি ঘরে বন্দি করে রেখেছিল যে রাত কি দিন তাও বুঝতে পারতেন না ও দিন তারিখ ঠিক করতে পারতেন না । তাই এই খাতায় কোনো দিন তারিখ দিয়ে তিনি লেখেননি । ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে কুর্মিটোলা নিয়ে যাবার বর্ণনা । বন্দিখানার কিছু কথা তিনি লিখেছেন, বিশেষ করে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় জড়িত করা হয়েছিল যে মামলায় অভিযোগ ছিল তিনি সশস্ত্ৰ বিপ্লব করে তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তানকে পাকিস্তান থেকে বিচ্ছিন্ন করতে চেয়েছিলেন-এতে আরও ৩৪ জন সামরিক ও অসামরিক কর্মকর্তাকেও জড়িত করা হয়েছিল ।
সেই সময় বন্দি অবস্থায় যে জিজ্ঞাসাবাদ করা হতো অর্থাৎ ইন্টারোগেশন করা হতো সে কথাও লিখেছেন । এই কষ্টের জীবন বেছে নিয়েছিলেন বাংলার সাধারণ মানুষের কল্যাণের জন্য । জনগণের জন্যই সারা জীবন সংগ্ৰাম করেছেন, কষ্ট করেছেন । মনের জোর ও মানুষের প্রতি ভালোবাসার কারণেই তাকে এত কষ্ট সহ্য করার ক্ষমতা আল্লাহ দিয়েছিলেন ।

প্রথম খাতাটা ১৯৬৬ সালে লেখা । আর দ্বিতীয়টা ১৯৬৭ সালে লেখা । এই সাথে আর কয়েকটি খাতায় ঐ সময়ের কথা লেখা ছিল সেগুলি সব ধারাবাহিকভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।

আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা শুরু হওয়ার পর ঘরের বাইরে কোর্টে নিয়ে যেত । কাঠগড়ায় সকল আসামিকে দেখতে পেয়েছিলেন । সকলের আইনজীবী ও পরিবারের সদস্যরাও উপস্থিত থাকতে পারতেন । পরিবারের সদস্য কতজন যেতে পারবে সে সংখ্যা নির্দিষ্ট করে পাশ দেয়া হতো । যারা পাশ পেতো তারাই ক্যান্টনমেন্টের ভেতরে কোর্টে যেতে পারতো । কারণ কোর্ট ক্যান্টনমেন্টের ভিতরেই বসতো ।
ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে যে খাতা দেওয়া হতো তার পাতাগুলি গুনে নাম্বার লিখে দিতো। প্রতিটি খাতা সেন্সর করে কর্তৃপক্ষের সাই ও সিল দিয়ে দিত।

এই লেখাগুলি ছাপানোর জন্য প্রস্তুত করার ক্ষেত্রে শামসুজ্জামান খান, বাংলা একাডেমির ডিজি সাৰ্ব্বক্ষণিক কষ্ট করেছেন । বার বার লেখাগুলো পড়ে প্রুফ দেখে দিয়েছেন বার বার সংশোধন করে দিয়েছেন। তাঁর প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা জানাই। তার পরামর্শ আমার জন্য অতি মূল্যবান ছিল । তার সহযোগিতা ছাড়া কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব হতো না । বাংলা একাডেমিকেই বইটি ছাপানোর জন্য দেয়া হয়েছে। সেলিমা, শাকিল, অভি। সর্বক্ষণ সহায়তা করেছে। তাদের সহযোগিতায় কাজটা দ্রুত সম্পন্ন করতে পেরেছি। তাদের সকলকে আমার আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। এই বইয়ের মূল প্রুফ দেখা থেকে শুরু করে ছাপানো পর্যন্ত যারা অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন তাদেরকেও আমি আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। পাঠকদের হাতে বিশেষ করে বাংলাদেশের মানুষের কাছে এই ডায়েরির লেখাগুলি যে তুলে দিতে পেরেছি। তার জন্য আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করছি । অসমাপ্ত আত্মজীবনী বাঙালি জাতির অধিকার আদায়ের সংগ্রামের পথপ্রদর্শক । ভাষা আন্দোলন থেকে ধাপে ধাপে স্বাধীনতা অর্জনের সোপানগুলি যে কত বন্ধুর পথ অতিক্রম করে এগুতে হয়েছে তার কিছুটা এই কারাগারের রোজনামচা বই থেকে পাওয়া যাবে । স্বাধীন বাংলাদেশ ও স্বাধীন জাতি হিসেবে মর্যাদা বাঙালি পেয়েছে যে সংগ্রামের মধ্য দিয়ে, সেই সংগ্রামে অনেক ব্যথা বেদনা, অশ্রু ও রক্তের ইতিহাস রয়েছে। মহান ত্যাগের মধ্য দিয়ে মহৎ অর্জন করে দিয়ে গেছেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান । এই ডায়েরি পড়ার সময় চোখের পানি বাধ মানে না । রেহানা, বেবী ও আমি চোখের পানিতে ভেসে কাজ করেছি। আজ বেবী নেই তার কথা বার বার মনে পড়ছে। বাংলা কম্পিউটার টাইপ করে নিনু আমার কাজটা সহজ করে দিয়েছে। অক্লান্ত পরিশ্রম করে সে কাজ করেছে তার আন্তরিকতা ও একাগ্ৰতা আমার কাজকে অনেক সহজ করে দিয়েছে, তাকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। নিনু যখন টাইপ করেছে তারও চোখের পানি সে ধরে রাখতে পারেনি । অনেকসময় কম্পিউটারের কী বোর্ড তার চোখের পানিতে সিক্ত হয়েছে। আমরা যারাই কাজ করেছি। কেউ আমরা চোখের পানি না ফেলে পারিনি ।

তার জীবনের এত কষ্ট ও ত্যাগের ফসল আজ স্বাধীন বাংলাদেশ । এ ডায়েরি পড়ার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের মানুষ তাদের স্বাধীনতার উৎস খুঁজে পাবে।

আমার মায়ের প্রেরণা ও অনুরোধে আব্বা লিখতে শুরু করেন । যতবার জেলে গেছেন আমার মা খাতা কিনে জেলে পৌঁছে দিতেন, আবার যখন মুক্তি পেতেন তখন খাতাগুলি সংগ্রহ করে নিজে সযত্নে রেখে দিতেন। তাঁর এই দূরদর্শী চিন্তা যদি না থাকত তাহলে এই মূল্যবান লেখা আমরা জাতির কাছে তুলে দিতে পারতাম না । বার বার মায়ের কথাই মনে পড়ছে।

শেখ হাসিনা
২৫শে জানুয়ারি ২০১৭

প্রকাশকঃ বাংলা একাডেমি
মূল্যঃ ৪০০ টাকা
।।।।
সুত্র: ইন্টারনেট

৩৬তম বিসিএস ভাইভায় ১ম দশ দিনে Foreign Affairs Cadre জিজ্ঞাসিত প্রশ্নসমূহ ।

 BPSC-B20160122084422১। প্রথম পছন্দ পররাষ্ট্র কেন?
২। why foreign is our first choice ?? name 3 reasons.Relationship between your subject and first choice
৩। প্রথম চয়েস ফরেন, ২য় চয়েস TAX, এই দুটো কিভাবে RELATED?
৪। ধর আমরা বিদেশি। তোমার দেশকে তুলে ধর
৫। . What is our foreign policy?
৬। .Our motto of foreign policy? Describe it in details
৭। . Whats the reason having this type of policy?
৮। সংবিধানে উল্লেখকৃত পররাষ্ট্রনীতি বলুন । What are basic principle of BD foreign policy?
9. what are the recent success of our foreign policy.
10. Who is your iconic diplomat and why?

11. What is East look policy ?

12. পারসনা নন গ্রাটা কী ?

13. What is Vienna Convention?
14. what are the facilities provided by host countries to a diplomat? Tell me briefly. 15. What is Diplomatic immunizes?What is negotiation, criteria of successful negotiations

16. .”Allocation of rules of business”-Explain it in terms of our constitution.
.
Explain
.
16. American president election system বলো.
17. কিভাবে FDI আনবে ?What are the Impediments of foreign investment of BD?
18. Our Relationship with China and India, explanations
19. what should be the role of bd in case of submarine?
20. what should be the step to protect RMG from fire?
21.represent bd in international arena and address to board chairman
22.Suppose you are a diplomat and now how you will justify and see India’s demand of defense treaty?
23. What is the most dangerous threat of the present world? and another questions
24.What is ICT? What is the other meaning of ICT?Do you think ICT is somehow helping the militants? How? Tell about Bangladesh context how ICT….

25.Somebody questioned about the genuineness of ICT, What are your arguments?

27. Suppose he (indicating one of members) is Mr. Donald Trump. As an ambassador of Bangladesh to USA, represent your county to Donald Trump.

28.Indicating External -1 madam, suppose, she is Donald Trump and you are Mr. Ambassador then how will you represent Bangladesh in front of Donald Trump?
29.if you are the representative of Bangladesh in another country then what will you focus to improve trade?

30.now briefly tell what the facilities will you provide for the investors?
31. Do you know the name of BD foreign minister ?Mahmood or Muhammad?is he a politician??

32. Donald Trump has withdrawn America from TPP. How Bangladesh will be affected for this?
33. Prime Minister Sheikh Hasina will visit to India. Do you support that we should sign a defense pact with India? As a diplomat, how will you suggest to our honorable prime minister?

34.Our Honorable PM is going to India on 7th April. As an ambassador would you like to recommend her to sign a defense treaty or pact?
35.How can you take back the money from Philippines?
36. Are there any internal involvement?
37.As a High commissioner how do you represent your country to Pakistan?

38.How do your represent Bangladesh to Mr. Trump?

39.. Why is Turkey reacting against our war crime Trials? Has Recipe Tayyip Erdoan detached from Kamal Atarkuk’s policy?
40. What is one belt, one road? What’s the purpose of one belt, one road?
41.what is the size of total export?
42.In USA, either republic or democrat, who comes in power or fight in election, always gives concentration to Israel. why?

43.Why china helps us at present situation though they were opposed our independence
44India, bd, china balance of diplomacy
45.India’s reaction regarding our Submarine
46.Last independent country of world, conditions of sovereignty
47.What are drawbacks for private sector investment?
48.What is promissory note?
49.What is letter of credit?
50.Is letter of credit a promissory note? Provide example

======
Crisis
=========
51.তুরস্কে কেন গণভোট হচ্ছে?
52. Palestine crisis সম্পর্কে বলেন?

53. IS territory? chief? details How can be solved IS crisis?
54. How do you mitigate the cold war between US- Russia?

55.How do you represent to the diplomats of Myanmar about the solution of Rohinga crisis?
56.Problems of South Sudan
57.Reasons behind the stagnation of UAE overseas employment, how we resolve it,
56.As an high commissioner, how I accredited myself in Pakistan, how i address our independence in that, how I feel with that
58.have you heard about Bicameral parliament ? name some countries
.
59.what is Brexit and present situation . Will Bangladesh affect by this ?
60.counter terrorism of Bangladesh

61.migration crisis
62.Syria crisis?এই crisis এ Russia, Middle East এর ভুমিকা কি?
63. UK and Britain, high commission, Embassy.
64. Blue economy
65.Bilateral , multilateral diplomacy example
66. What is comparative advantage
67. What is TPP, its recent status and its implication on our economy
68. Letter of credence
69. How you will persuade Mr. Trump to invest in our country
70. Trade relation of Bangladesh with China and India
71: What are Embassy, Ambassador, High Commission and High Commissioner?
72What is the difference between agreement and MOU?

73: How is the foreign relation of Bangladesh with Sri Lanka?
74: What do you know about diplomatic success of present govt.?
75: Sea Victory is important one. মায়ানমারের কাছ থেকে কত পরিমাণ জলসীমা লাভ করেছে বাংলাদেশ?
76: What is Blue Economy? How can it contribute to our national economy?
77: Tell about 7th five-year plan.
78: What is SDG? How many goals and targets? What is the timeline?
79: Is there any reflection of SDG in 7th five-year plan? What?
80 You might have known about Vision-2021. Why is it 2021? Why not 2022 or 23?
81.-planet 50-50 award কি.
82.planet 50-50 award কি কারনে পেয়েছেন.
83. What is comparative advantage
84. What is TPP, its recent status and its implication on our economy
85. Letter of credence
86. How you will persuade Mr. Trump to invest in our country
87. Trade relation of Bangladesh with China and India

88.Donald trump er foreign policy ki?
89. UK কি কি নিয়ে গঠিত?
90.Scotland er capital কি?
91.tell what’s happened between Turkey and EU?
92.what’s the difference between bds democracy and us democracy
93., ইসরায়েলের দুইটি রাজনৈতিক দলের নামম বলো?
94., মধ্যপ্রাচ্য পশ্চিমা গণতন্ত্র আছে এমন দুইটা দেশের নাম বলো?
95তিস্তা চুক্তি,সীমান্ত সমস্যা
96.ভারতের সাথে সীমান্ত জেলা গুলো বল? বাংলাদেশের চারপাশে ভারতের কোন কোন রাজ্য আছে? কোন কোন দেশ?
97..ভূ-মধ্যসাগর থেকে লোহিত সাগরে নৌকায় কিভাবে যাব?
98.সাংবাদিকতা না করে ফরেন কেন দিসো? ( সাংবাদিকতার ছাত্র)
99.এমব্যাসাডর, হাইকমিশনারের পার্থক্য
100.ভারতকে ট্রানজিট দেয়ায় কি সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘন হয়েছে?
101.দক্ষিণ চীন সাগরে আমেরিকা,চীন ও ফিলিপাইনের দন্দ

102.sdg কী কয়টা গোল আর টার্গেট।কিছু গোল আছে যার কোনো মাপকাঠি নাই। একটা বলো।
103) Ldc ভূক্ত হওয়ার শর্তগুলো কী?
104) আমাদের ট্যানজিবল ইনট্যানজিবল কী কী এতিহ্য আছে?
//
কোথায় :
105.Trafalgar square Koi?
106. ঊলানবাটর এর নাম শুনছেন?কোথায় শুনছেন, কেন বিখ্যাত?
107.Trafalgar square কই?State of liberty কোথায়? এটার ইতিহাস বল?
108.ম্যাকমোহন লাইন কোথায়?
109.চীন ভারতের একটা রাজ্য দখল করে নিয়েছিল রাজ্য টার নাম বলো?

110.Haiti কোথায়? Haiti এর capital কি?এর চারপাশের দেশগুলোর নাম বলেন?
111.দিয়াগো গার্সিয়া দ্বীপ কই?

112Sieralion er capital কি? এটি কোথায়?
113.লেবানন কই?
114ওয়েলস এর রাজধানী কি? কোথায় ম্যাপে দেখাও
115.What is the deepest point of the world?Where is it? Do you know the depth?

116head of the state – head of the govt. এর পার্থক্য, বাংলাদেশে কে, আমেরিকায় কে, অস্ট্রেলিয়ায় কে, ইংল্যান্ড এ কে.
117. আব্রাহাম লিংকন কেন বিখ্যাত?
118. পার্ল হারবার কি?
119. আইনস্টাইন কে ছিলেন?
120.What is CTTC?
121.ফ্রান্সের নির্বাচনের উপর ইউরোপীয় ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে…. কেন?
Organization
122.What is Brexit? Tell about Thresa May’s last speech at Parliament?
123.SAARC কি? কবে,কোথায় প্রতিষ্টিত হয়? Member কারা?SAARC er future কি? (opinion নিছে)
124.BIMSTEC কি? কবে,কেন গঠিত হয়?BIMSTEC কি SAARC এর বিকল্প হতে পারে?
125.NAM সম্পর্কে বলেন

126. OIC এর মহাসচিবের নাম কি? কেন conference কে organization of Islamic cooperation রাখা হলো?
127. WTO what and it’s H.Q.
128. ADB and WB (h.q. and president)
129.Who is the present SG of UN? And his details….
130.Is Bangladesh a signatory of TICFA?
131.UN er Member কয়টা সর্বশেষ কোনটা?
132..Ambassador of Bd in US.
133..China -Taiwan relationship.
134. সল্ট১,২,স্টার্ট ১,২

135.ডিপ সি পোর্ট নিয়া কথা উঠলো। ঐখান থেকে গেলো ইন্ডিয়া চীন রিলেশন। ওয়ান বেল্ট, সিল্ক রুট। এক্সটার্নাল জিজ্ঞাস করলেন চীন-ইন্ডিয়ার দুইটার সাথেই যে বাংলাদেশ ব্যালেন্স করতেছে এটার একটা নাম আছে।
136.) What do you mean by Minister plenipotentiary?
138) What is the foreign affairs day of BD? What do you know about it?
139) BD has a visa office in India. Where is it situated?
140)What is the name of BD Mission in UN?
141) Which country has a consulate in Rajshahi?
142) Mention the address of U. S embassy in Dhaka.
143) What do you mean by ambassadress?
144)Who is ambassador designate?
145) What is aide memory?
146) What is Bout de Papier?
147. What is diplomatic mission?
148. Who is the head of the mission?What is consulate? who is the head of Consulate?
149. What is Global Village
150. What is First Citizen ?

৩৬তম বিসিএস ভাইভায় ১ম দশ দিনে প্রশাসন Cadre জিজ্ঞাসিত প্রশ্নসমূহ ।

BPSC-B20160122084422১. Why Admin is your first choice?
২.what is Administration?প্রশাসন কত প্রকার।
৩. Who is the head of administration,part of administration,What is the function of a secretary?
৪..ডিসি কে ? কী কী নামে ডাকা হয়/ কী কী পদবী ?তাঁর কাজ কী? কী কী কালেক্ট করে?
৫.সহকারী কমিশনার এর কাজ কী?
৬.এসি ল্যান্ড এর কাজ কী?এসি ল্যান্ড হলে ঘুষ খাব কিনা
৭.কিভাবে পাবলিক পরীক্ষায় মেজেস্টেসি করে?
৮.যারা বিচার করে তাদের কি মেজিস্ট্রেট বলে
৯.এখন পাওয়ার কম তবু কেন প্রশাসন
১০. এই মেজিস্ট্রেট এর অন্য নাম কি
১১.প্রথম ও বর্তমান ক্যাবিনেট সেক্রেটারি কে?প্রথম এর অবদান
১2.where is BPATC?
১3.WHAT is the function of BPATC?
১4.what is the difference between Rector and proctor?
১৫. এডমিন এর সর্বোচ্চ পদ কি?পদ সোপান গুলো বলেন টপ টু বটম লেভেল?
১৬.১৪৪ দ্বারা কি?আপনি কি করবেন যদি জনগণ ১৪৪ দ্বারা না মানে?
১৭.Cr PC কি?
১৮. ডিসি যদি রেভিনিউ কালেকশন করে আর বিভাগীয় কমিশনার যদি কালেকশন করে তবে বিভাগীয় কমিশনারকে কি বলবেন??
১৯. সারকেল অফিসার পদটি এখন কোথায় পাওয়া যায়?
২০. প্রধানমন্ত্রী শাসিত সরকার ও মন্ত্রীপরিষদ শাসিত সরকারের পার্থক্য বলো? আমাদের দেশে কোনটা?
২১. জেলা প্রশাসল অন্য কোন তিনটি দায়িত্ব পালন করে থাকেন?
২২. মুখ্য সচিব,মূর্খ,দুর্যোগ,ভন্ড,দ্বন্দ্ব এরকম আরো কয়েকটা বানান লিখতে বললেন।
২৩. বাংলাদেশের প্রশাসনে কী কী সমস্যা?
২৪. বর্তমানের মন্ত্রিপরিষদ সচিব কে ?
২৫. president and PM k address কর?
২৬. constitutional organ গুলো কি কি? public service commission, & election commission কত article আছে? এগুলো detail বলতে বলছে…
chief election commissioner সম্পর্কে detail বলো?
২৭.: স্থানীয় প্রশাসন বলতে কি বুঝ? কি কি?
২৮.: কেন দরকার হল?
২৯: What is LGSP ?
৩০: সরকারের অঙ্গসমুহ কি কি?
৩১: নির্বাহী বিভাগের প্রধান কে?
৩২.DC office e কি কি meeting হয়।
৩৩. District e কয়টা ministry কাজ করে
৩৪. খাস জমি কীভাবে বরাদ্দ দেয়.
৩৫. Sp ও DC এর relationship
৩৬. DC কি SP কে direct নির্দেষ করতে পারে কি?
৩৭.বর্তমান প্রশাসনে আপনার জেলার উচ্চপদস্থ একজন ব্যক্তি আছেন, উনার নাম কী?
৩৮.৩ জন secretary নাম বলো.
৩৯. জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কিভাবে নির্বাচিত হয় (ডিটেইলস)।
৪০. পৌরসভার চেয়ারম্যান কে এখন পৌর মেয়র বলা হয় কেন?কাজের পার্থক্য কী? কেন নাম পরিবর্তন করা হইছে?
৪১.Tell about Allocation of Business and Rules of Business.
৪২.প্রশাসনিক কাঠামো বল,
৪৩..স্থানীয় শাসন কয় প্রকার? কী কী?
৪৪.স্থানীয় সরকারের স্তর বল
৪৫. উপজেলা পরিষদের সদস্য কারা কারা?
৪৬. জেলা কী? জেলা কী শহুরে না গ্রামীণ? (অনেক প্যাচাইছে)
৪৭. জেলা পরিষদ আর জেলা প্রশাসনের মধ্যে কী পার্থক্য?
৪৮..সরকারের অংগ কয়টি? প্রধান কে?
৪৯. বাংলাদেশ সংবিধানের যতগুলো সংশোধনী হয়েছে, তোমার কাছে কোনটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে?
৫০.সংবিধানের কত নং অনুচ্ছেদে জাতি হিসেবে বাঙালি ও বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদের কথা বলা হয়েছে?
৫১.বাংলাদেশ সরকারের প্রতীক কোনটি?
৫২. অর্থ বিল এবং সাধারন বিলের মধ্যে পার্থক্য
৫৩.. সরকার ট্যাক্স রেট বাড়ায় কোন বিলের মাধ্যমে?
৫৪..what is decentralization
৫৫.Merits and demerits of decentralization.
৫৬. Income Inequality কি?Gender Inequality কি?
৫৭..what is Education?what is training?what do you mean by Development?Do you think training makes a man better human being?How?
৫৮.আমাদের কয়টি অর্থনৈতিক অঞ্চল আছে?কয়েকদিন আগে প্রধাণ্মন্ত্রী তার ভাষণে কয়টি অর্থনৈতিক অঞ্চলের কথা বলেছে শুনেছো?
৫৯. রিট কি? রিট এর কথা কি সংবিধানে বলা আছে? সংবিধানের মাধ্যমে বলবত করা যাবে?writ বানান কর
৬০.law ও act এর মধ্যে পার্থক্য?
৬১. what is article 144? who imposed it?when it is imposed?
৬২. বহির্বিশ্বে এখন বাংলাদেশের ভাবমূর্তি কেমন?
৬৩. এক সময় তো তলা বিহীন ঝুড়ি বলা হত এখন কী বলা হয়?
৬৪. Do u support Extra-judicial killing?How u will defend extra-judicial killing to a high official who is from Interpol?
৬৫. দেশে আইএস আছে?জঙ্গ‌িবাদ দমনে সুপারিশ?
৬৬. মঙ্গা কী?এখন কি মঙ্গা আছে? কেনো নাই ?সরকার কী কী পদক্ষেপ নিয়েছে এ ব্যাপারে?
৬৭.দেশে মোবাইল ফোনের গ্রাহক কত? ইন্টারনেটের গ্রাহক কত?
৬৮। পায়রা সমুদ্র বন্দর সম্পর্কে যা যা জানো বল।
৬৯। ভিশন ২০৪১ বাস্তবায়িত হলে দেশ কেমন হবে? ভিশন ২০২১ এর কয়েকটি লক্ষ্য বল
৭০। . নিম্ন মধ্য আয়ের দেশ কেন বলা হয়? কিসের ভিত্তিতে বলা হয়?
৭১। Govt কি women related কোন policy নিচ্ছে, ?
৭২। বর্তমান নারী নির্যাতনের সামগ্রিক অবস্থা কী?নির্যাতন কেন হচ্ছে?
৭৩। Feminism কি, তুমি কোন feminism?
৭৪। নারী নির্যাতন সম্পর্কে তো একটা Day আছে, এখন তো পুরুষরাও নির্যতিত, তাদের জন্য তো একটা Day দরকার , আপনি কি মনে করেন?
৭৫। নারী সম্মেলন সম্পর্কে ৪ টা কি কি পদক্ষেপ নিছে এর থিম কি ছিলো?
৭৬। অনে‌কে বল‌ছে সরকার ভার‌তের সা‌থে গোপন সাম‌রিক চু‌ক্তি কর‌ছে,আপ‌নি কী ম‌নে ক‌রেন?
৭৭। সরকার য‌দি ভারতে‌কে বাংলা‌দে‌শের আকাশসীমা ও বিমানঘাঁটি ব্যবহার কর‌তে দেয় ত‌বে কী ক্ষ‌তি হ‌বে?
৭৮। বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনের সুবিধা ও অসুবিধা
৭৯। কিছুদিন আগে prime minister world leadership এ কততম হইছিলেন?আর পাশের দেশগুলোর নাম বলুন?
৮০। বর্তমানে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় এখন কত?
৮১। দারিদ্রসীমা কিভাবে পরিমাপ করা হয়?
৮২। রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র সম্পর্কে বলুন…
৮৩। . পদ্মাসেতু হলে খুলনার কি কি লাভ হবে?
৮৪। সরকারের ১০ টি অগ্রাধিকার মূলক সাফল্য বল?
৮৫। .শেখ হাসিনার অগ্রাধিকার মুলক যে কাজ তিনি হাতে নিয়েছেন তার ১০ টি নাম বল?
৮৬। SDG কি? বাংলাদেশে কোন কোন লক্ষ্যমাত্রা প্রয়োগযোগ্য? এস ডি জি তে লিঙ্গ বৈষম্য সম্পরকিত ধারা টা বল?
৮৭। আবুল মাল আব্দুল মুহিত কে সম্প্রতি কোন পুরস্কার দেয়া হয় এবং কেন?
৮৮। রেড ট্যাপিজম কী?

মে মাসে ফের সাগরে ভাসছে টাইটানিক

titanic-ship-wreck

এক্সক্লুসিভ ডেস্ক:  এক শতাব্দীরও আগে ১৯১২ সালে উত্তর আটলান্টিকের ডুবন্ত বরফ খণ্ডের সঙ্গে ধাক্কা লেগে সলীল সমাধি হয় টাইটানিকের।

তৎকালীন বিশ্বের সর্ববৃহৎ এবং উচ্চবিলাসী এই প্রমোদতরীটি নিয়ে বর্তমান সময়েও জল্পনা-কল্পনার শেষ নেই কোনো।

এখনো যেনো আটলান্টিকের শীতল শান্ত জলের অতলে ডুবে থাকা টাইটানিক রোমাঞ্চ প্রিয় মানুষের ঘুম চোখে হানা দেয় বারংবার।  তবে ভারী পকেটের যাত্রীরা চাইলে এই স্বপ্ন পূরণ করতে পারবেন।

মে মাসে দেখা যাবে ডুবন্ত টাইটানিককে! কিন্তু কীভাবে?  লন্ডন ভিত্তিক ট্রাভেল কোম্পানি ব্লু মার্বেল প্রাইভেট, আগামী বছরের মে মাস থেকে এই সুবিধা চালু করতে যাচ্ছে।

এর জন্য প্রত্যেক ব্যক্তিকে ১ লক্ষ ৫ হাজার আমেরিকান ডলার বা প্রায় ৮৪ লক্ষ টাকা গুণতে হবে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

কখনো ডুবে যাবে না এমন ঘোষণা দেয়া টাইটানিক জাহাজটি ডুবে যাবার বহুবছর পর রবার্ট ব্যালার্ড ও তার দল এটিকে খুঁজে বের করেন ১৯৮৫ সালে।  টাইটানিকে এটাই শেষ ভ্রমণসুযোগ বলে জানিয়েছে ট্রাভেল কোম্পানিটি।

তাছাড়া ২০১৬ সালের এক গবেষণায় দেখা গেছে, নতুন আবিষ্কৃত ‘এক্সট্রিমোফিল ব্যাকটেরিয়া’ জাহাজটির ধ্বংসাবশেষ খাওয়া শুরু করে দিয়েছে।  এভাবে চলতে থাকলে আগামী ১৫ থেকে ২০ বছরের মধ্যেই একেবারে নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে এটি।

তার আগেই সমুদ্রের তলদেশে ঘুমন্ত টাইটানিককে যত সম্ভব মানুষকে দেখার সুযোগ করে দিতে সম্ভাব্য আট দিনের যাত্রা ঠিক করেছে ব্লু মার্বেল প্রাইভেট।

কানাডার নিউফাউন্ডল্যান্ড থেকে বিশেষভাবে নির্মিত টাইটানিয়াম ও কার্বন-ফাইবারের তৈরি ডুবোজাহাজে করে তারা যাত্রীদের নিয়ে যাবে আটলান্টিকের প্রায় দুই কিলোমিটার গভীরে।

তবে প্রথম ভ্রমণের সব টিকিট ইতোমধ্যে শেষ হয়ে গিয়েছে বলে জানিয়েছে ব্লু মার্বেল।  উল্লেখ্য, ১৯১২ সালের ১৫ এপ্রিল উত্তর আটলান্টিক সাগরে বরফের পাহাড়ের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে ডুবে যায় আসল টাইটানিক জাহাজ।  এ ঘটনায় দেড় হাজারের বেশি যাত্রী ও নাবিক নিহত হন। -সিএনএন

রেকর্ড পাতায় নাম লেখাতে আর মাত্র ১ রান দরকার তামিমের!

01tamimবাংলাদেশ ক্রিকেট দলের প্রায় সকল রেকর্ডই তামিম ইকবালের দখলে।  টেস্ট, ওয়ানডে ও টি২০ তিন ফরম্যাটেরই বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক তামিম।  বাংলাদেশের হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তামিমের সংগ্রহ মোট ৯৯৯৯ রান।  মানে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ১০ হাজার রান থেকে মাত্র ১ রান দূরে আছেন বাংলাদেশের এই ডেশিং ওপেনার।

তামিম ইকবাল এখন পর্যন্ত ৪৯ টি টেস্ট ম্যাচে ৯৪ ইনিংসে ব্যাট করে ৩৯.৫৩ গড়ে রান করেছেন ৩৬৭৭।  সর্বোচ্চ ২০৬ রান।  টেস্ট ক্রিকেটে তার সেঞ্চুরির সংখ্যা ৮টি এবং হাফ সেঞ্চুরি করেছেন ২২টি।

এদিকে ১৬২ ওয়ানডেতে তামিমের সংগ্রহ ৩২.৪০ গড়ে ৫১২০ রান।  ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ১৫৪ রান।  ওয়ানডে ক্রিকেটে তার সেঞ্চুরির সংখ্যা ৭টি এবং হাফ সেঞ্চুরি রয়েছে ৩৪টি।

তামিম টি-২০তে বাংলাদেশের হয়ে ৫৫ বার ব্যাট হাতে মাঠে নেমেছেন।  ২৪.০৪ গড়ে করেছেন ১২০২ রান।  সেঞ্চুরির সংখ্যা ১টি, হাফ সেঞ্চুরি করেছেন ৪টি।  ক্যারিয়ার সর্বোচ্চ অপরাজিত ১০৩ রান।

ডাম্বুলায় আগামী ২৫ শে মার্চ স্বাগতিক শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শুরু হবে টাইগারদের ওয়ানডে সিরিজ।  সেদিন যদি তামিম ইকবাল অন্তত রানের খাতা খুলতে পারেন তাহলেই প্রবেশ করবেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে ১০ হাজারীদের ক্লাবে। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের প্রায় সকল রেকর্ডই তামিম ইকবালের দখলে।  টেস্ট, ওয়ানডে ও টি২০ তিন ফরম্যাটেরই বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক তামিম।  বাংলাদেশের হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তামিমের সংগ্রহ মোট ৯৯৯৯ রান।  মানে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ১০ হাজার রান থেকে মাত্র ১ রান দূরে আছেন বাংলাদেশের এই ডেশিং ওপেনার।

তামিম ইকবাল এখন পর্যন্ত ৪৯ টি টেস্ট ম্যাচে ৯৪ ইনিংসে ব্যাট করে ৩৯.৫৩ গড়ে রান করেছেন ৩৬৭৭।  সর্বোচ্চ ২০৬ রান।  টেস্ট ক্রিকেটে তার সেঞ্চুরির সংখ্যা ৮টি এবং হাফ সেঞ্চুরি করেছেন ২২টি।

এদিকে ১৬২ ওয়ানডেতে তামিমের সংগ্রহ ৩২.৪০ গড়ে ৫১২০ রান।  ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ১৫৪ রান।  ওয়ানডে ক্রিকেটে তার সেঞ্চুরির সংখ্যা ৭টি এবং হাফ সেঞ্চুরি রয়েছে ৩৪টি।

তামিম টি-২০তে বাংলাদেশের হয়ে ৫৫ বার ব্যাট হাতে মাঠে নেমেছেন।  ২৪.০৪ গড়ে করেছেন ১২০২ রান।  সেঞ্চুরির সংখ্যা ১টি, হাফ সেঞ্চুরি করেছেন ৪টি।  ক্যারিয়ার সর্বোচ্চ অপরাজিত ১০৩ রান।

ডাম্বুলায় আগামী ২৫ শে মার্চ স্বাগতিক শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শুরু হবে টাইগারদের ওয়ানডে সিরিজ।  সেদিন যদি তামিম ইকবাল অন্তত রানের খাতা খুলতে পারেন তাহলেই প্রবেশ করবেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে ১০ হাজারীদের ক্লাবে।

জ্ঞান যেখানে সীমাবদ্ধ, বুদ্ধি যেখানে আড়ষ্ট, মুক্তি সেখানে অসম্ভব।